আ’লীগে যোগ দিয়েই বেপরোয়া ফতুল্লার বরিশাইল্যা টিপু

90

আমাদের নারায়ণগঞ্জঃ ফতুল্লায় নব্য এক গডফাদারের আর্বিভাব ঘটেছে। সিনেমা হলের টিকিট চেকার থেকে জাল দলিল তৈরীর মাধ্যমে সরকারী-ব্যক্তি মালিকানাধীন সহ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের জমি আত্মসাতের মধ্য দিয়ে একাধিক বাড়ী,ডাইং কারখানার মালক বনে যাওয়া ফতুল্লার দাপা পোস্ট অফিস রোড এলাকার রফিকুল ইসলাম টিপু ওরফে বরিশাইল্লা টিপু স্থানীয় মহলে হয়ে উঠেছে মূর্তিমান আতংক। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে নাম লিখিয়েছে সরকার দলীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কিছুদিন পূর্বে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নাম লেখানো বরিশাইল্লা টিপু হয়ে উঠেছে অতি মাত্রায় বেপোরোয়া। স্থানীয় মহল জুড়ে জন্ম দিচ্ছে একর পর অপরাধমূলক কর্মকান্ড। এরই ধারাবাহিকতায় গত সোমবার রাতে বরিশাইল্লা টিপু ও তার পালিত সন্ত্রাসী বাহিনী প্রথমে নির্মম ভাবে কুপিয়ে ও পরে এসিড দিয়ে জ্বলসে দিয়ে হত্যার চেস্টা চালায় ছাত্রলীগ নেতা সৈয়দ মুন্না কে। এ ঘটনায় আহত ছাত্রলীগ নেতা মুন্নার ভাই বাদী হয়ে রফিকুল ইসলাম টিপু ওরফে বরিশাইল্লা টিপুকে প্রধান আসামী সহ ছয় জনের নাম উল্লেখ্য করে মঙ্গলবার দুপুরে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ঘটনার রাতেই ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ বরিশাইল্লা টিপুর অফিসের বাইরের রাস্তা থেকে সাইফুল নামক এজাহার নামীয় এক আসামী কে গ্রেফতার করে ।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানাগেছে, বরিশ্যইল্যা টিপু দীর্ঘদিন ধরে পোষ্ট অফিস রোডস্থ তার দিপ্তি ডাইংয়ে বসেই স্থানীয় সন্ত্রাসীদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলেন। এখান থেকেই আওয়ামী লীগ,বিএনপি ও জামাতের ক্যাডার নানা সুবিধা নিয়ে থাকেন। তার বিরুদ্ধে জামাতের পৃষ্টপোষকতার পাশাপাশি শীর্ষ সন্ত্রাসীদের মাসোহারার মাধ্যমে আশ্রয়-প্রশ্রয়ের অভিযোগ। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সুবিধাভোগী সন্ত্রাসী হচ্ছে বিএনপি ক্যাডর তোতলা মুসলিম,জামাই সেন্টু, ফতুল্লার শীর্ষ সন্ত্রাসী টুন্ডা মাসুদ, রিফুজি বাড়ির ডাকাত মাসুম ওরুফে ল্যাংড়া মাসুম, শাহজাহান রোলিংমিল এলাকার জিতু, ভূমি জালিয়াতি চক্রের হোতা রোসেন হাউজিং এলাকার মোস্তাক ও লালপুর পৌষা পুকুরপাড় এলাকার আইয়ুব অন্যতম।

আর এসব সন্ত্রাসী ভূমিদস্যুদের সহযোগীতা নিয়েই বরিশাইল্যা টিপু বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তার অত্যাচারের হাত থেকে তার নিজ ফ্যাক্টরীর শ্রমিক,প্রতিবেশী এমনকি তার আপন ভাতিজাও রক্ষা পায়নি। চলতি বছরের ৯ জানুয়ারী বরিশাইল্যা টিপুর নির্মমতার শিকার হয়েছে তার আপন ভাতিজা আকাইদ। তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে বরিশাইল্যা টিপুর নিদের্শে তার সন্ত্রাসী ভাগ্নে রায়হান, রাজিবসহ একাধিক সন্ত্রাসী রিফুজিপাড়া এলাকায় টিপু ছোট ভাই আওলাদ হোসেন লাকুর বাড়িতে হামলা চালিয়ে তারপুত্র আকাইদের হাত-পায়ের রক কেটে হত্যার চেষ্টা চেলায়। এ ঘটনায় আওলাদ হোসেন লাক্কু ফতুল্লা মডেল থানা একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। সর্বশেষ গত ৩০ সেপ্টেম্বর (সোমবার) রাতে ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগ নেতা মুন্নাকে হত্যা চেষ্টা চালাই এই নব্য গডফাদার। অভিযোগ রয়েছে ছাত্রলীগ নেতা মুন্না হত্যা চেষ্টার আগে এই বরিশাইল্যা টিপুর মালিকানধীন দিপ্ত ডাইং থেকেই এসিড নিয়ে ওৎ পেতে থাকে সন্ত্রাসীরা। মুন্নাকে কুপিয়ে শরীর এসিড নিক্ষেপ করে এমন অভিযোগ আহত মুন্নার স্বজনদের।

এর আগে ২০১৮ সালের ১০ জানুয়ারী জয়নগর ও দিপ্তি ডাইংয়ের মধ্যে অবস্থিত সরকারী রাস্তাটি দীর্ঘ ২ বছর ধরে বন্ধ করে দিয়ে মানুষ চলাচলে প্রতিবন্ধকতা করেন দিপ্তি ডাইংয়ের মালিক রফিকুল ইসলাম টিপু। এ নিয়ে এলাকাবাসী একাধিক বার প্রতিবাদ জানালেও টিপু প্রতিবাদকারীদের নানা ভাবে ভয়ভিতি দেখিয়ে আসছিলো। ওই বছরের ৮ জানুয়ারী এলাকারা দেলোয়ার হোসেন রাস্তা বন্ধ রাখার প্রতিবাদ জানালে নব্য গডফাদার টিপু তার ভাই সাপ্পু, ভাগ্নে রায়হান,রাজিবসহ বেশ কিছু ভাড়াটে সন্ত্রাসী দেলোয়ারের উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। দেলোয়ারের ডাকচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

এসময় স্থানীয়রা দেলোয়ার গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে খানপুর ৩শ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করে পরে অবস্থার অবনতি ঘটলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি। টিপুর বিরুদ্ধে ভূমিদস্যুতা, চেকজালিয়াতি, সন্ত্রাসী লালনসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদে এলাকাবাসী ঝাড়– মিছিলও করেছিলো। উল্লেখ্য, বরিশাইল্যা টিপু সাবেক এমপি কবরীর সময়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমানের ফ্যাক্টরীতে হামলা চালিয়েছিলো বলেও অভিযোগ রয়েছে।

SHARE