আমাদের নারায়ণগঞ্জ

পরিবারে কোনো সদস্যের প্রতি অন্য সদস্য বা সদস্যগণের দ্বারা সংঘটিত নির্যাতন বা সহিংসতা   পারিবারিক সহিংসতা ( যা গৃহ নির্যাতন বা পরিবারে সংঘটিত সহিংসতা নামেও পরিচিত) বলতে বিবাহ বা একত্রে বসবাসের মত পারিবারিক পরিবেশে সংঘটিত সহিংসতা বা অন্যান্য নির্যাতন বোঝানো হয়। সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে সহিংসতার প্রতিশব্দ হিসাবে বর্তমান পারিবারিক সহিংসতা প্রায়শই ব্যবহৃত হয়, যা ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে থাকা একজন ব্যক্তি অপর ব্যক্তির প্রতি করে থাকে এবং বিপরীত লিঙ্গের সম্পর্কগুলোতে বা একই লিঙ্গভিত্তিক সম্পর্ক বা প্রাক্তন স্বামী-স্ত্রী বা সঙ্গীদের মধ্যে হতে পারে। বিস্তৃত অর্থে, শিশু, কিশোর, বাবা-মা বা বয়োজ্যোষ্ঠদর প্রতি সহিংসতাও পারিবারিক সহিংসতা হিসেবে বিবেচিত। এটি শারীরিক, মৌখিক, মানসিক, অর্থনৈতিক, ধর্মীয়, প্রজননমূলক এবং যৌন নির্যাতনসহ একাধিক রূপ পরিগ্রহ করে, যেখানে সূক্ষ্ম, জবরদস্তিপূর্ণ রূপ থেকে শুরু করে ধর্ষণ, দমবন্ধ, মারধর, নারী জননাঙ্গের বিকৃতি ও এসিড নিক্ষেপের মতো সহিংস শারীরিক নির্যাতন পর্যন্ত হতে পারে, যা অবশেষে পঙ্গুত্ব বা মৃত্যু ডেকে আনে। পারিবারিক হত্যাকাণ্ডের মধ্যে রয়েছে পাথর মেরে হত্যা করা, গৃহবধূকে অগ্নিদগ্ধ করা, অনার কিলিং বা সম্মান রক্ষার্থে হত্যা এবং যৌতুকের কারণে মৃত্যু (যা কখনও কখনও পরিবারের সদস্যদের যোগসাজসে হয়ে থাকে)। বিশ্বব্যাপী পারিবারিক সহিংসতার শিকার ব্যক্তিরা অধিকাংশই নারী এবং নারীরাই সহিংসতার সবচেয়ে ভয়াবহ ধরনের মুখোমুখি হন। আবার তারা পুরুষের তুলনায় ঘনিষ্ঠ সঙ্গীর সহিংসতাকে আত্মরক্ষার ঢাল হিসেবেও বেশি ব্যবহার করেন। কিছু কিছু দেশে পারিবারিক সহিংসতাকে ন্যায়সঙ্গত বা আইনত অনুমোদিত হিসেবেও দেখা যায়, বিশেষত যদি নারী প্রকৃতই বিশ্বাসঘাতকতার কাজ করেন বা সন্দেহভাজন হন। গবেষণায় দেখা গেছে, একটি দেশের লিঙ্গ সমতার স্তর এবং পারিবারিক সহিংসতার হারের মধ্যে একটি প্রত্যক্ষ এবং তাৎপর্যপূর্ণ পারস্পরিক সম্পর্ক রয়েছে, লিঙ্গ সমতা কম থাকা দেশগুলিতে পারিবারিক সহিংসতার অনেক হার বেশি। নারী ও পুরুষ উভয়ের জন্যই বিশ্বব্যাপী পারিবারিক সহিংসতা সর্বাধিক অবহেলিত অপরাধগুলির মধ্যে একটি । পুরুষ নির্যাতনের বিষয়টি সামাজিকভাবে লজ্জার বিষয় হিসেবে বিবেচিত হয় বলে পারিবারিক সহিংসতার শিকার পুরুষরা স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারীদের দ্বারা অবহেলিত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে। পারিবারিক সহিংসতা প্রায়শই ঘটে যখন নির্যাতক ব্যক্তি মনে করেন যে, নির্যাতন করা এক প্রকার অধিকার, গ্রহণযোগ্য, ন্যায়সঙ্গত বিষয় বা এ বিষয়ে রিপোর্ট বা প্রতিবেদন হওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। এটি আন্তঃপ্রজন্মভিত্তিক সহিংসতার একটি চক্র তৈরি করতে পারে যেখানে এ ধরনের সহিংসতাকে গ্রহণযোগ্য বা ক্ষমাযোগ্য মনে করা হয়। অনেক লোক নিজেকে নির্যাতনকারী বা ভুক্তভোগী হিসাবে স্বীকৃতি দেয় না কারণ তারা তাদের অভিজ্ঞতাগুলো অনিয়ন্ত্রিত পারিবারিক দ্বন্দ্বের প্রকাশ হিসেবে বিবেচনা করেন।পারিবারিক সহিংসতা বিষয়ে সচেতনতা, এর উপলব্ধি, সংজ্ঞা এবং দলিলিকরণের বিষয়টি দেশ দেশে ব্যাপকভাবে ভিন্ন। পারিবারিক সহিংসতা প্রায়শই জোরপূর্বক বিয়ে বা বাল্যবিবাহের প্রেক্ষাপটে ঘটে থাকে। নির্যাতনকেন্দ্রিক সম্পর্কগুলোতে, নির্যাতনের একটি চক্র থাকতে পারে যেখানে প্রথমে উত্তেজনা বাড়তে থাকে এবং তারপর সহিংসতার ঘটনা ঘটে থাকে; অতঃপর মিলন এবং শান্তির পরিস্থিতি তৈরি হয়। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিরা বিচ্ছিন্নতা, শক্তি ও নিয়ন্ত্রণ, নির্যাতকের সঙ্গে যন্ত্রণাদায়ক বন্ধন, সাংস্কৃতিক গ্রহণযোগ্যতা, আর্থিক সংস্থান, ভয়, লজ্জা এবং বাচ্চাদের সুরক্ষার জন্য পারিবারিক সহিংস পরিস্থিতিতে আবদ্ধ হতে পারেন। নির্যাতনের ফলস্বরূপ ভুক্তভোগীগণ শারীরিক অক্ষমতা, অনিয়ন্ত্রিত আগ্রাসন, দীর্ঘস্থায়ী স্বাস্থ্য সমস্যা, মানসিক অসুস্থতা, সীমাবদ্ধ অর্থসংস্থান এবং সুস্থ সম্পর্ক তৈরির ক্ষেত্রে দুর্বলতার পরিচয় ইত্যাদি নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন। তারা মারাত্মক মানসিক ব্যাধি যেমন পোস্টট্রোম্যাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডার (আঘাত পরবর্তী মানসিক চাপ) সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারেন। যে শিশুরা সহিংসতাপূর্ণ পরিবারে বসবাস করে তারা প্রায়শই ছোট বেলা থেকে বিভিন্ন মানসিক সমস্যায় ভোগে, যেমন এড়িয়ে চলা, অযাচিত অতিরিক্ত ভীতি এবং অনিয়ন্ত্রিত আগ্রাসন, যা পরিণতিতে পরোক্ষ মানসিক আঘাত তৈরিতে অবদান রাখতে পারে।

 

সুত্র : https://bn.m.wikipedia.org/wiki/পারিবারিক_সহিংসতা